Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipiscing elit. Test link

প্রোটিনের জন্য ডিম বেশি খাচ্ছেন? এমন গুরুতর সমস্যার শিকার হতে পারেন

ডিমের ক্ষতিকর দিক, হাঁসের ডিমে কি এলার্জি আছে, রাতে ডিম খাওয়ার উপকারিতা, কোলেস্টেরল থেকে মুক্তির উপায়, ডিমের উপকারিতা ও অপকারিতা
ডিমের ক্ষতিকর দিক, হাঁসের ডিমে কি এলার্জি আছে, রাতে ডিম খাওয়ার উপকারিতা, কোলেস্টেরল থেকে মুক্তির উপায়, ডিমের উপকারিতা ও অপকারিতা

বেশি ডিম খাওয়ার ক্ষতিকর দিক

শরীরকে শক্তিশালী করতে এবং পেশীগুলির উন্নত বিকাশের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন গ্রহণ করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলে মনে করা হয়। প্রোটিনের নাম শুনলেই প্রথম চিন্তা আসে ডিমের কথা। যাইহোক, ডিম এই পুষ্টির সেরা এবং সহজলভ্য উৎস হিসাবে বিবেচিত হয়। 100 গ্রাম ডিম থেকে গড়ে 13 গ্রাম প্রোটিন পাওয়া যায়। অন্যদিকে, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের প্রতিদিন প্রায় 56 গ্রাম এবং মহিলাদের প্রায় 46 গ্রাম প্রোটিন প্রয়োজন। অর্থাৎ অন্যান্য জিনিসের মধ্যে আপনি যদি প্রতিদিন চারটি ডিম খান তাহলে শরীরের এই চাহিদা সহজেই পূরণ করা সম্ভব। কিন্তু বেশি প্রোটিনের জন্য আপনি কি খুব বেশি ডিম খাচ্ছেন ?

বেশি ডিম খাওয়া ক্ষতিকর হতে পারে
বেশি ডিম খাওয়া ক্ষতিকর হতে পারে

ডায়েটিশিয়ানদের মতে, শরীরের পুষ্টির প্রয়োজন শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে। এর বেশি সঠিকভাবে হজম হতে পারে না, যার কারণে এটি লিভার এবং কিডনির জন্য অতিরিক্ত কাজ করতে পারে। একই সময়ে, গবেষণায় দেখা যায় যে যারা বেশি ডিম খান তাদেরও অনেক গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি থাকতে পারে। আসুন এই বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেই।

কোলেস্টেরল সমস্যা হতে পারে

সীমিত পরিমাণে ডিম খাওয়া উপকারী হলেও এর অতিরিক্ত অনেক গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে। বিশেষ করে যারা বেশি পরিমাণে ডিম খান তাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধির ঝুঁকি থাকতে পারে। যদিও একটি বড় ডিমে গড়ে 186 মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল থাকে, বিশেষজ্ঞরা দিনে 300 মিলিগ্রামের বেশি কোলেস্টেরল না খাওয়ার পরামর্শ দেন। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিদিন দুটি ডিম খাওয়া সুস্থ শরীরের জন্য যথেষ্ট হতে পারে।

কোলেস্টেরলের সমস্যা বাড়তে পারে
কোলেস্টেরলের সমস্যা বাড়তে পারে

ডিম বেশি খেলে পেট ফোলা সমস্যা

বেশি পরিমাণে ডিম খাওয়ার অভ্যাস আপনার পেটের সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে। যারা বেশি ডিম খান তাদের কোষ্ঠকাঠিন্য এবং পেট ফোলা হতে পারে। একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশি প্রোটিন এবং কোলেস্টেরল সঠিকভাবে হজম হয় না, যার কারণে আপনি অনেক গুরুতর পেটের সমস্যার ঝুঁকিতে থাকেন। আপনি যদি প্রচুর পরিমাণে ডিম খেতে থাকেন তবে এটি লিভারের স্বাস্থ্যের উপরও মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে।

বেশি ডিম খেলে পেট ফোলা ও ব্যথা হয়
বেশি ডিম খেলে পেট ফোলা ও ব্যথা হয়

ডায়াবেটিস রোগীদের সমস্যা বাড়তে পারে

ডায়াবেটিস রোগীদের প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে ডিম খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, যদিও এটি খুব বেশি খাওয়া রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে। ডিমে চর্বি বেশি থাকে যা অতিরিক্ত খেলে রক্তে শর্করার মাত্রার উপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।

ডিম রক্তে শর্করা বাড়াতে পারে
ডিম রক্তে শর্করা বাড়াতে পারে

অনেক বেশি ডিম খেলে ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্সের সমস্যা বেড়ে যায় যার ফলে আপনার স্বাস্থ্যগত জটিলতা বাড়তে পারে। ব্রিটিশ জার্নাল অফ নিউট্রিশনে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, প্রতিদিন দুটির বেশি ডিম খাওয়া ডায়াবেটিসের ঝুঁকি 60% বাড়িয়ে দিতে পারে।

বেশি ডিম খেলে ত্বকের সমস্যা

অতিরিক্ত পরিমাণে ডিম খাওয়ার কারণে ত্বক সংক্রান্ত নানা সমস্যা হতে পারে। ডিমে প্রোজেস্টেরন থাকে, এটি খুব বেশি খেলে শরীরে প্রোজেস্টেরন হরমোনের ঝুঁকি বেড়ে যায়, যার কারণে আপনার ফোঁড়া বা ব্রণের সমস্যা হতে পারে। ডিম থেকে সর্বাধিক সুবিধা পেতে, পরিমিতভাবে তাদের ব্যবহার নিশ্চিত করা প্রয়োজন।

বেশি ডিম খাওয়ার প্রভাব ত্বকে
বেশি ডিম খাওয়ার প্রভাব ত্বকে

দ্রষ্টব্য: এই নিবন্ধটি মেডিকেল রিপোর্ট এবং স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে।

অস্বীকৃতি: আমাদের স্বাস্থ্য পরামর্শ বিভাগে প্রকাশিত সমস্ত নিবন্ধ ডাক্তার, বিশেষজ্ঞ এবং একাডেমিক প্রতিষ্ঠানের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে প্রস্তুত করা হয়েছে।এই নিবন্ধটি প্রস্তুত করার সময় সমস্ত নির্দেশাবলী অনুসরণ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট নিবন্ধটি পাঠকের জ্ঞান ও সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।কবিতা নিবন্ধে প্রদত্ত তথ্য ও তথ্যের জন্য দাবি করে না বা কোন দায়িত্ব নেয় না। উপরের নিবন্ধে উল্লিখিত সচেতনতা সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

Hi, I am Parimal Samanta, I am an Indian. I have passed high school from village school. Keep yourself healthy and help others stay healthy.

Post a Comment